এক লাখ রোহিঙ্গাকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়ার কাজ শুরু

কক্সবাজারে অতি দুর্যোগ ঝুঁকিতে থাকা এক লাখ রোহিঙ্গাকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়ার কাজ শুরু করেছে সরকার। এরই মধ্যে সরিয়ে নেয়া হয়েছে প্রায় ১০ হাজার রোহিঙ্গাকে। পাশাপাশি দুর্যোগ মোকাবেলা উপযোগী ঘর তৈরী-সহ নানা বিষয়ে তাদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা।

নতুন পুরনো মিলে কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের ১২টি ক্যাম্পে বসবাস করছে ১০ লাখের বেশি রোহিঙ্গা। সামনের বর্ষা মৌসুমে পাহাড় ধ্বস ও বন্যার ঝুঁকিতে রয়েছে আশ্রয় নেয়া এসব মানুষ।

দিন যত যাচ্ছে ততই আতংকিত হয়ে পড়ছে রোহিঙ্গারা। তাই ঝুঁকিতে থাকা এসব রোহিঙ্গাকে দূর্যোগ মোকাবেলার উপযোগী ঘর তৈরী-সহ নানা বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিচ্ছে IOM, UNHCR ও রেড ক্রিসেন্ট।

বিভিন্ন সংস্থার জরিপ বলছে, বন্যা ও ভূমিধ্বসের ঝুঁকিতে আছে ২ লাখ রোহিঙ্গা। এরমধ্যে ১ লাখ অতিমাত্রায় ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে বলে জানান শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার। তাই ইতোমধ্যে ১০ হাজার রোহিঙ্গাকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। কুতুপালং ক্যাম্পের পাশে ভূমি উন্নয়ন-সহ শেড নির্মাণের কাজ চলছে বলে জানান এই কর্মকর্তা।

রোহিঙ্গারা ৫ হাজার একরেরও বেশি সংরক্ষিত বন কেটে উজাড় করেছে। যার কারণে ব্যাপকহারে পাহাড় ধ্বসের আশংকা রয়েছে।